কটিয়াদীতে আমন ধানের বীজ সংকট : চাহিদা অনুযায়ী বরাদ্দ কম

আপডেট : July, 4, 2017, 11:45 am

মোঃ ছিদ্দিক মিয়া, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে পৌরসভাসহ ৯টি ইউনিয়নে ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষাবাদের জন্য আমন বীজের ধান তীব্র সংকট দেখা দেয়ায় কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছে। আমন বীজের শেষ মৌসুমে উপজেলার সর্ববৃহৎ কটিয়াদী বাজারে বিএডিসি আমন বীজ বাজারে না থাকায় শত শত কৃষক বেসরকারি বিভিন্ন কোম্পানীর বীজ দশ কেজির বস্তা ৫৭০ টাকা করে কিনে নিতে দেখা গেছে। অকাল বন্যা ও পাহাড়ি ঢলে বোর ফসলের ব্যাপক ক্ষতির পর কৃষকগণ আমন চাষে উদ্বুদ্ধ হয়ে পড়ে। এর মধ্যে বীজ ধানের সংকটে তারা দিশেহারা হয়ে পড়ছেন। এলাকায় ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী এসে পরিদর্শনে বলেছিলেন বিনামূল্যে সার বীজ দেয়া হবে। কিন্তু এখন টাকা দিয়েও সরকারি বীজ পাওয়া যাচ্ছে না।

কটিয়াদী উপজেলার কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,বিআর-১১, বিআর-৩২, বিআর-৪৯, বিনা-৭ ধানের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী সরকারিভাবে ১৫০ মে.টন বীজ ধানের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৯২ মে.টন। এ বছর আমন ধানের উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৫ হাজার মে.টন। কিন্তু সরকারি ১৫০ মে.টন বীজের চাহিদার মধ্যে বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৯২ মে.টন। ৯টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় বিএডিসির ২০জন ডিলার রয়েছে।

গতকাল কটিয়াদী বাজারে বীজ কিনতে আসা চরপুক্ষিয়া গ্রামের কৃষক মতিউর রহমান বলেন, আমরা আমন ধানের বীজ কেনার জন্য বাজারে এসেছি। কিন্তু সরকারি বীজ না থাকায় সময় পেরিয়ে যাওয়ার কারণে বাধ্য হয়ে ৩৪০ টাকার বীজ ধান ৫৭০টাকা দিয়ে কিনেছি। কৃষকদের অভিযোগ,চাহিদা অনুযায়ী বীজ না থাকায় অসাধু ডিলাররা অতিরিক্ত মূল্যে বীজ ধান বিক্রি করছেন।

কটিয়াদী বাজারের ডিলাররা জানান, বিএডিসি থেকে বীজ ধান সরবরাহ না করায় বীজ ধানের এই সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা ২০ জন ডিলার যা বরাদ্দ পেয়েছি তা বীজ উত্তোলন করে কৃষকদের মাঝে বিতরণ করেছি।

এ বিষয়ে কটিয়াদী উপজেলা কৃষি অফিসার হুমায়ুন কবীর বলেন, এবার অতিরিক্ত ধানচাষে আগ্রহী হয়েছে কৃষক।বিএডিসির বীজ ধান সরবরাহ কম থাকায় এলাকায় বীজের এ ধরনের সংকট দেখা দিয়েছে।যারা বেশি মূল্যে বীজ বিক্রির করছেন তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Facebook Comments

103331
Total Users : 3331