মাগুরায় ফাঁদ পেতেই উপার্জনে মক্ত বিউটিরা

আপডেট : June, 25, 2017, 7:27 am

মাহামুদুন নবী (স্টাফ রিপোর্টার)খবর বাংলাদেশ: মাগুরায় ঈদকে সামনে রেখে পুরা শহর জুড়েই চলছে বিউটিদের রাজত্ব । বিউটি ও তারদলের অন্যরকম ফাঁদ, একই কথা ‘টাকা দাও নয় বিয়ে কর’। দিতে বলছি শুনছো না? টাকা দাও, নয় বিয়ে কর, তাইলে আর কারো কাছে টাকা চাবো না, ঘরে বসেই খাবো, তুমি খাওয়াবা ? ঝটপট টাকা দাও , আরে একটা কিছুতো দাও হয় টাকা না হয় বিয়ে কর। সারাদেশের ন্যায় গুরাতেও সামনে ঈদকে ঘিরে বড়ই বেপরোয়া হিজড়ারা। রীতিমতো সেজে-গুজে ,রঙ্গে-ঢঙ্গে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে তারা। কাহারো কোন ছাড় নেই পাচ্ছনে না কোন প্রশাসনের লোকও তাদের থেকে। সারা বছর কোননা- কোনোভাবে বুঝিয়ে ওদের থেকে কেটে পড়া যেত। এখন সেই উপায় নেই, জাপটে ধরে রাখে ছয়- সাত জনের একটি গ্রুপ। টাকা না দিলে তাদের নাকি বিয়ে করতে হবে। জেলা শহরের ভায়না মোড়ে, ঢাকা রোডে ,আতর আলী সড়কে , বাস টার্মিনালে, নতুন বাজারে ,দেখা মিলে হিজড়াদের একটি গ্রুপ।গ্রুপটি বসির নামে এক যুবককে ঘিরে বলছে, ‘দাও, টাকা দাও। দিতে বলছি শুনছো না? অদ্ভুত হাততালি দিয়ে, এই দেনা রে। কিছুক্ষন পরেই বাস টার্মিনালে ঢাকার বাসে স্বপরিবারে যাত্রাকরা আসাদ এক যুবককে ঘিরে বলছে এই টাকা দে , না হলে তোর বউ ছেড়ে দিয়ে আমায় বিয়ে কর ,তাড়া-তাড়ি দে , বেশি করে দিবি কিš‘ ঈদ

বোনাসসহ ।কোনো উপায় না পেয়ে ১০ টাকা বের করেন তিনি। ১০ টাকায় রক্ষা হয়নি, শেষে ১০০ টাকায় এবারের মতো ছাড়া পান তিনি। এইভাবে হাজার-হাজার লোকজনকে হঠাৎ বেকায়দায় ফেলে উপার্জন

করছে হিজলাদের এ চক্রটি । আসাদ বলেন, ‘মাঝে মাঝে মনে হয় মরে যাই, কেউ কোনো অপরাধের প্রতিবাদ করেন না। ১৩০ টাকা নিয়ে বাসা থেকে বের হলাম। রোজা রেখেছি, ১০০ টাকা ইফতার খরচ রেখেছি, সেটা নিয়ে গেল।’‘এই দেনা রে’ সম্বোধন ও অদ্ভুত হাততালি, অশালীন আচরণ হিজড়াদের স্বভাবজাত। চার-পাঁচজন করে দলে বিভক্ত হয়ে হানা দি”েছ তারা। দাবি করা চাঁদা না দিয়ে ছাড় নেই কারোর। ঈদ ঘিরে হিজড়াদের বেপরোয়া চাঁদাবাজি যেন লাগাম ছেড়েছে। বাসা-বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, অফিস সব জায়গায় চলছে তাদের জোর-জবরদস্তি। চাহিদার থেকে কম দিলেই অশালীন কথা, দৃষ্টিকটু অঙ্গভঙ্গির সঙ্গে শরীরের স্পর্শকাতর স্থানগুলোতে হাত দিতে শুরু করে হিজড়ারা। এতে চক্ষু লজ্জায় টাকা দিয়ে বিদায় করতে বাধ্য হন সাধারণ মানুষ।বাজারের সামনে দেখা গেলো একটি ফলের দোকান একদল হিজরা ঘিরে রেখেছে। তাদের চাহিদা ঈদের বকশিসসহ একশ টাকা,

Facebook Comments

103331
Total Users : 3331